ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ই মে ২০২২ ইং | ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শেরপুরে এক মণ ধানেও মিলছেনা না একজন শ্রমিক!

বাদশা আলম, শেরপুর, বগুড়া-বৈরী আবহাওয়ার কারনে গত কয়েকদিনের বৃষ্টি ও ঝড়ো বাতাসে কারনে উত্তর বঙ্গের শস্য ভান্ডার নামে খ্যাত বগুড়া জেলার শেরপুর উপজেলার মাঠে মাঠে পাকা ধানের শীষ পানিতে তলিয়ে গেছে। এমনিতেই শ্রমিক সংকট তারপর আবার বৈরী আবহাওয়া জমির ধান পানিতে ভাসছে এ যেন কৃষকদের গোদের উপর বিষ ফোঁড়া।
ঝড়ো বাতাসে নুইয়ে পড়া জমির পাকা বা আধাপাকা ধান ঘরে তুলতে বিপাকে পড়েছেন শেরপুরের কৃষকেরা। শ্রমিক সঙ্কটের করণে ধান কাটতে পারছেন না অনেক কৃষক। এদিকে বর্তমান বাজারে ভেজা ধানের পাইকারি বাজার প্রতি মণ ৮০০-৯০০ টাকা। আর একজন শ্রমিককেই দৈনিক মজুরিও দিতে হচ্ছে ১১০০ থেকে ১৩০০ টাকা। তবুও মিলছে না শ্রমিক। সব মিলিয়ে বোরো ধান নিয়ে বিপাকে রয়েছেন কৃষকরা।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর জানিয়েছে , চলতি ইরি-বোরো মৌসুমে উপজেলার চলতি মৌসুমে ২০ হাজার ৭০০ হেক্টর জমিতে বোরোর আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। অর্জিত হয়েছে ২০ হাজার ৩শ’৮৫ হেক্টর। সুবর্ণলতা, কাটারিভোগ, মিনিকেট, ব্রি ধান-২৮, ২৯ ও উচ্চ ফলনশীল হাইব্রিড ধানসহ বেশ কয়েক জাতের ধান চাষ করেন কৃষকরা। তবে বৈশাখ মাসের প্রথম থেকেই উপজেলায় মাঝে মাঝে কালবৈশাখী ঝড় ও বৃষ্টিপাতের কারণে অনেক কৃষক তড়িঘড়ি করে ধান কেটে ঘরে তোলার চেষ্টা করছেন। কুসুম্বী ইউনিয়নের দু-একটি নিচু বিল নামা জামুর এলাকার পানিতে দেখা দিয়েছে জোক। ফলে ঐ এলাকার কৃষকদের সমস্যা আরও জটিল।
উপজেলার অন্যান্য এলাকায় ঘুরে দেখা গেছে, ইতিমধ্যেই ঝড়-বৃষ্টিতে পাকা ও আধাপাকা ধান মাটিতে নুইয়ে পড়ে ধান গাছে পঁচন ও ধানে চারা গজাতে শুরু করেছে। ফলে অনেকেই ঝড় ও শিলাবৃষ্টির আতঙ্কে দিশেহারা হয়ে অতিরিক্ত মূল্য দিয়ে শ্রমিক নিয়ে আধাপাকা ধান কাটছেন।
উপজেলার খানপুর, সুঘাট, মির্জাপুর, কুসুম্বী ইউনিয়নের অনেকেই জানান, মজুরি হিসেবে এক মণ ধানের দাম দিয়েও মিলছে না একজন শ্রমিক। শ্রমিক মিললেও জনপ্রতি মজুরি দিতে হচ্ছে ১১০০ থেকে ১৩০০ টাকা। আবার কোথাও কোথাও ৬/৭ হাজার টাকা বিঘা চুক্তি। অন্যান্য খরচ তো আছেই। শ্রমিক সংকটের কারণে অনেক কৃষক নিজেরাই শুরু করেছেন ধান কাটা। তবে কমবেশি সব এলাকায় বোরো ধান কাটা শুরু হয়েছে। তাই শ্রমিকদের চাহিদা বেশি। ধান কাটার জন্য শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না।
এলাকার স্থানীয় ব্যবসায়ীরা জানান, ঘন ঘন বৃষ্টির কারণে ধানের দাম গত বছরের চেয়ে মণ প্রতি ১০০ থেকে ১৫০ টাকা কমে কেনা-বেচা হচ্ছে। এ বছর কৃষকদের কাছ থেকে সুবর্নলতা ব্রি ধান ২৮ ভেজা প্রতি মণ ধান কেনা হয়েছে ৮০০ থেকে ৮৫০ টাকা দরে। কাটারিভোগ ও মিনিকেট ভেজা ধান প্রতি মণ ৯০০ থেকে ১০০০ টাকা। যা গত বছর ছিল ১১৫০ থেকে ১২০০ টাকা।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা (অতিরিক্ত) জান্নাতুল ফেরদৌস জানান, এবার উপজেলায় ধানের ফলন ভালো হয়েছে তবে দাম একটু কম, তারা কৃষকদের ধান ভালোভাবে শুকিয়ে সংরক্ষণ করার পরামর্শ দিচ্ছেন। যাতে সংরক্ষিত ধান কৃষকরা পরে বিক্রি করে ভালো দাম পান ও লাভবান হন।

You must be Logged in to post comment.

ফুলবাড়ীতে বঙ্গবন্ধু জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট উদ্বোধন     |     সাতক্ষীরায় বিএসএফের ছিনতাই হওয়া সেই অস্ত্র উদ্ধার     |     বীরগঞ্জে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত বীর মুক্তিযোদ্ধা তরনী কান্ত রায়     |     বীরগঞ্জে জাতীয় শিশু পুরস্কার প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত     |     ঠাকুরগাঁওয়ে ৩টি এলএমজি, ২৪টি বন্দুক সহ অসখ্য গুলি উদ্ধার     |     ঝিকরগাছায় দপ্তরীর ছেলে বাড়ীতে ফিরলেন হেলিকপ্টারে!     |     ঝিকরগাছার পল্লী থেকে গৃহবধূর সখী লাশ উদ্ধার     |     মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিল সম্পন্ন পূণরায় সভাপতি ফরহাদ,সম্পাদক খালেক     |     ঝিনাইদহে পুর্ব শত্রুতার জেরে পুুকুরে বিষ দিয়ে মাছ নিধন, ২ লাখ টাকার ক্ষতি     |     সাতক্ষীরায় পৃথক স্থান থেকে দুই জনের মরদেহ উদ্ধার     |