ঢাকা, শনিবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর ২০২১ ইং | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শেরপুরে লাখো মানুষের দুর্ভোগ ৩৪৬ কি. মি. কাঁচা সড়কে

বাদশা আলম, শেরপুর বগুড়া থেকে:বিগত ১২ বছরে প্রায় দুইশ কিলোমিটার রাস্তা পাকাকরণ হলেও বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় ৩৪৬ কিলোমিটার গ্রামীণ সড়ক এখনো কাঁচা রয়েছে। তাছাড়া এ অঞ্চলের মাটি লাল হওয়ায় অল্প একটু বৃষ্টি হলেও কাদার সৃষ্টি হয়। ফলে এসব রাস্তা দিয়ে চলাচলকারী মানুষ জন ও যান চলাচলে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) শেরপুর উপজেলা অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলায় ১০টি ইউনিয়নে এলজিইডির সর্বমোট রাস্তা রয়েছে ৬৫৫.৮৫ কিলোমিটার। এর মধ্যে পাকা হয়েছে ৩০৯ কিলোমিটার। আর কাঁচা সড়ক রয়েছে ৩৪৬.২৪ কিলোমিটার। ২০০৮ সালের পর আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে প্রায় ২শ কিলোমিটার গ্রামীণ সড়ক পাকা হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের মধ্যে বিগত ১২ বছরে সবচেয়ে বেশি গ্রামীণ সড়ক পাকা হয়েছে বিশালপুর, খানপুর, সুঘাট, গাড়ীদহ ও ভবানীপুর ইউনিয়নে। এসব এলাকায় নতুন নতুন সড়ক পাকা হওয়ায় বদলে গেছে এলাকার চিত্র।
শহরের সঙ্গে যোগাযোগ সহজতর হয়েছে। রাস্তা পাকা হওয়ায় নতুন নতুন যানবাহন চলাচলসহ উন্নয়নের নতুন দিগন্তের সূচনা হয়েছে। কিন্তু উপজেলার কুসুম্বী, খামারকান্দি, মির্জাপুর, সীমাবাড়ী ও শাহবন্দেগী ইউনিয়নের অধিকাংশ গ্রামীণ সড়কই এখনও কাঁচা রয়েছে। ফলে বর্ষাকালে এসব রাস্তায় চলাচল দুঃসাধ্য হয়ে পড়ে।
শেরপুর উপজেলার কুসুম্বী ইউনিয়নের উদয়কুড়ি গ্রামের আব্দুল জলিল জানান, দীর্ঘদিনেও আমাদের এলাকার তিন কিলোমিটার রাস্তা পাকা না হওয়ায় আমরা বর্ষাকালে চরম ভাগান্তিতে পড়তে হয়। রাস্তা না থাকায় আমাদের ফসলের ন্যায্য মূল্যও পাই না। আমরা ভাত কাপড় চাই না আমরা চাই পাকা রাস্তা।
উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের দড়িমুকুন্দ গ্রামের মোজাহার আলী জানান, মদনপুর থেকে রাজবাড়ী সড়কের কিছু অংশ পাকা হয়েছে। কিন্তু বাকিটুকু কাঁচা থাকায় ১০ গ্রামের মানুষের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। লালমাটিতে বৃষ্টি হলেই কাদা হওয়ায় পায়ে হেঁটেও চলা যায় না।
শাহবন্দেগী ইউনিয়নের বাঘমারা গ্রামের বীরেন্দ্রনাথ মাহাতো জানান, দীর্ঘদিনেও আমাদের রাস্তা পাকা না হওয়ায় ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠীর মানুষেরা চরম দুর্ভোগে রয়েছি। বিদ্যুৎ পেলেও রাস্তা না থাকার কারণে এলাকার উন্নয়ন হচ্ছে না।
সীমাবাড়ী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মুনছুর রহমান আকন্দ জানান, টাকা ধুকুরিয়া থেকে নলুয়া হয়ে ঘাসুরিয়া গ্রামের রাস্তা এখনো কাঁচা রয়েছে। ফলে এলাকার শত শত মানুষকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।
উপজেলার খানপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম রাঞ্জু জানান, বিগত ৫ বছরে ইউনিয়নের প্রায় ১৫ কিলোমিটার রাস্তা পাকাকরণ হয়েছে। আরও কাজ চলমান রয়েছে।
শেরপুর উপজেলা এলজিইডির উপ-সহকারি প্রকৌশলী মো. আব্দুর রশিদ জানান, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে উপজেলায় ৩০টি গ্রামীণ সড়কের ৪৮.২৫ কিলোমিটার পাকাকরণ হয়েছে। ২০১৯-২০ অর্থ বছরের ১৮টি রাস্তা ৩৭.৪০ কিলোমিটার রাস্তা পাকাকরণ হয়েছে। এছাড়া গাড়ীদহ থেকে ঝাঁজর পর্যন্ত ৯ কিলোমিটার এবং সুবলী থেকে খাগা হয়ে মির্জাপুর পর্যন্ত ৬ কিলোমিটার রাস্তা পাকাকরণের কাজ চলমান।
স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের শেরপুর উপজেলা প্রকৌশলী নূর মোহাম্মাদ জানান, এই উপজেলায় ৯টি উপজেলা সড়কের ১০৪.৯৩ কিলোমিটার রাস্তা সবই পাকা। ৫৪টি ইউনিয়ন রোডের ২৩৯ কিলোমিটারের মধ্যে ৮২.৭৫ কিলোমিটার কাঁচা রয়েছে। এছাড়া গ্রামীণ সড়কের ১৯০টি সড়কের ৩১১ কিলোমিটার সড়কের মধ্যে ২৬৩.১ কিলোমিটার সড়ক এখনো কাঁচা রয়েছে। তবে তিনি জানান, পর্যায়ক্রমে উপজেলার গ্রামীণ সড়কগুলো পাকাকরণের কাজ চলছে। ধীরে ধীরে সব রাস্তাই পাকা হয়ে যাবে।

You must be Logged in to post comment.

রাণীশংকৈলে বৈদ্যুতিক শক লেগে মা ও ছেলের মর্মান্তিক মৃত্যু     |     ঠাকুরগাঁওয়ে বৈদ্যুৎস্পৃষ্টে প্রাণ হারালেন মা-ছেলে     |     ঠাকুরগাঁওয়ে তিন স্কুলের ১৪ ছাত্রী করোনায় আক্রান্ত     |     রূপসায় নির্বাচনী মত বিনিময় সভা     |     সাতক্ষীরায় ১০ম শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রীর রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার     |     সাতক্ষীরায় জলবায়ু ধর্মঘট ও তরুনদের প্রতীকি ফাঁসি কর্মসূচি পালিত     |     রানীশংকৈলে মধ্যযুগীয় কায়দায় যুবককে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্মম নির্যাতন, নির্যাতিতা মহিলা গ্রেফতার      |     বিয়ে করার কারণে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন, ভিডিও ভাইরাল, আটক-১     |     আটোয়ারীতে সাংবাদিকদের সাথে নব যোগদানকৃত কৃষি অফিসারের মতবিনিময়     |     ফুলবাড়ীতে ৯মাস থেকে উপবৃত্তির টাকা পায়নি প্রাথমিকের সাড়ে ১৭০০ শিক্ষার্থী।     |