ঢাকা, শুক্রবার, ৯ই ডিসেম্বর ২০২২ ইং | ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শেরপুরে লেপ-তোষক তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা

বাদশা আলম, শেরপুর বগুড়া শীত আসছে। দিনে গরম, রাতে ঠান্ডা। আর ভোরে শীতল সিগ্ধ বাতাস। সাত-সকালে ঘাস-পাতার ওপর জমে থাকা শিশির কণা জানান দিচ্ছে শীতের আগমনী বার্তা। শীতের আগমনী বার্তার সাথে সাথে উপজেলায় লেপ-তোষক প্রস্ততকারী কারিগরদের মাঝে কর্মচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে। লেপ-তোষক প্রস্তুকারী দোকানিরা এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন। একই সঙ্গে গ্রামের বিভিন্ন পরিবারে পড়ে গেছে কাঁথা সেলাইয়ের ধুম।
বগুড়ার শেরপুর পৌরসভা সহ বিভিন্ন হাট বাজারে লেপ-তোষক প্রস্ততকারী বিভিন্ন দোকান ঘুরে দেখা গেছে, মালিক-শ্রমিক, ধুনকাররা এখন তুলাধোনায়, লেপ-তোষক তৈরির সেলাইয়ের কাজে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। তারা জানান, শীত মৌসুমের শুরুতেই ক্রেতারা দোকানে পছন্দমতো লেপ-তোষক তৈরির অর্ডার দিয়ে রেখেছেন।
উপজেলার খামারকান্দি, মির্জাপুর, ছোনকা বাজার, ও শেরপুর শহরের ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে জানা যায়, ভালো মুনাফা এবং বেশি বিক্রির আশায় দিন-রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন তারা । ক্রেতারাও লেপ-তোষক তৈরির জন্য ভিড় করছেন। শহর সহ উপজেলার ছোট-বড় হাটবাজার গুলোয় জাজিম, বালিশ, লেপ, তোষক তৈরি ও বিক্রির কাজে শতাধিক ব্যবসায়ী নিয়োজিত রয়েছেন। তবে এবার তুলার দাম অনেক বেশি।
কালার তুলা প্রতিকেজি ৫০ টাকা, মিশালী তুলা ৪০ টাকা, সিম্পল তুলা ১০০ টাকা, শিমুল তুলা ৪৫০ টাকা ও সাদা তুলা ৮০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা জানান, শীতের তীব্রতা বাড়লে লেপ-তোষক তৈরি ও বিক্রি হয় বেশি উপজেলায় ১০০ থেকে ১৫০ টির বেশি লেপ-তোষকের দোকান রয়েছে। এসব দোকানের কারিগররা এখন খুবই কর্মব্যস্ত।
শেরপুর বৈকাল বাজার রোডের মা বাবার দোওয়া বেডশীড এর মালিক মোঃ আফজাল হোসেন জানান, সময়মতো লেপ-তোষক ডেলিভারি দেয়ার জন্য তারা এখন ব্যতিব্যস্ত। সারা বছরের মধ্যে এ শীত মৌসুমেই তারা কাজের বেশি অর্ডার পান। ফলে এ সময় তাদের কাজ বেশি করতে হয়। এক মৌসুমের আয় দিয়েই তাদের পুরো বছর চলতে হয়।
সিয়াম বেডিং হাউজের মালিক মোঃ লোকমান দেওয়ান জানান, কাপড়ের মান বুঝে লেপ-তোষকের দাম নির্ধারণ করা হয়। তারা ৪-৫ হাত লেপের দাম পড়ছে ১৫০০ থেকে ১৮০০ টাকা। আর তোষক তৈরিতে দাম পড়ছে ১৫০০ থেকে ২৪০০ টাকার মধ্যে। বিগত বছরগুলোর তুলনায় এ বছর লেপ-তোষকের দাম একটু বেশি পড়বে। কেননা এ বছর কাপড় ও তুলা বাড়তি দামে কিনতে হয়েছে।
লেপের কারিগর শ্রী নারায়ন পাল জানান, শীত শুরু হতে না হতেই তাদের কর্মব্যস্ততা বেড়ে গেছে। তারা ৪-৫ হাতের একটি লেপ ২ ঘণ্টায় তৈরি করে দিতে পারেন। লেপ-তোষকের দোকানের মালিকরা আরও জানান শীত মৌসুমে প্রত্যেকটি দোকানে ২ শতাধিক লেপ-তোষক ও জাজিম কেনা-বেচা হয়।
উপজেলার খামারকান্দি গ্রামের মিসেস আলো জানান, শহরের অনেক মধ্যবিত্ত পরিবার শীত মৌসুম আসার সঙ্গে সঙ্গেই তাদের কাছে কাঁথা সেলাই করে নেয়ার জন্য কাপড় সরবরাহ করেন।

You must be Logged in to post comment.

মির্জা ফখরুলকে আটকের প্রতিবাদে ঠাকুরগাঁওয়ে বিক্ষোভ      |     বোদায় শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ     |     লালমনিরহাটে বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল     |     চিলাহাটিতে আওয়ামী লীগের জন্য  পুনরায় ফিরে পেলো টিসিবির পণ্য সুবিধাভোগীরা।      |     লালমনিরহাটে নবাগত জেলা প্রশাসকের মতবিনিময় সভা     |     ফিজু স্মৃতি গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন     |     ফুলবাড়ীতে দুই দলের সমর্থকদের প্রীতি ফুটবল ম্যাচ,বিজয়ী আর্জেন্টিনা।     |     গাংনীতে নাশকতা মামলার সন্দেহভাজন আসামী যুবদল নেতা জাহিদ আটক     |     বীরগঞ্জে প্রতিবন্ধীদের মাঝে হুইলচেয়ার বিতরণ     |     টাঙ্গাইলের এলেঙ্গায় জিমে’র আড়ালে মাদক ব্যবসা ; ৩০ লাখ টাকার হিরোইনসহ নারী আটক     |