ঢাকা, সোমবার, ১৮ই অক্টোবর ২০২১ ইং | ৩রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সরকারি নির্বাচনের আদলেই ভোটের আগেই ভোট গ্রহণ ইউপি সদস্য প্রার্থী নির্বাচিত হলেন আব্দুল মোতালেব

পঞ্চগড় প্রতিনিধি: ভোটের আগেই ভোট দিয়েছে ভোটাররা। শনিবার পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলার ময়দানদিঘী ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের কেরানীপাড়া গ্রামে এই নির্বাচিন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে এলাকাবাসি ভোটাররা মো. আব্দুল মোতালেবকে নির্বাচিত করেছেন। দেশের সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচনের তফশিল ঘোষনার পর নির্বাচনের দিনক্ষন ঠিক হয়। সেদিনই ভোটগ্রহন অনুষ্ঠিত হয় এটাই আইনগত নিয়ম। কিন্তু পঞ্চগড়ের একটি গ্রামে তাদের ইউপি সদস্য নির্বাচিত করতে নির্বাচনের পূর্বেই গ্রামবাসীরা একত্রিত হয়ে তাদের ভোট প্রদান করেছেন।
সমঝোতা না হওয়ায় জেলার বোদা উপজেলার ময়দানদিঘী ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের কেরানীপাড়া গ্রামের ৪ প্রার্থীর মধ্যে নির্বাচনে একজনকে বেছে নিতে ভোটের আগে ভোট দিয়েছেন। প্রার্থী বাছাই করতে সরকারি নির্বাচনের আদলেই ভোটের আয়োজন করেছেন। ওই গ্রামের হায়াতুন নবীর বাড়ির সামনে অস্থায়ী এই ভোট কেন্দ্র স্থাপন করা হয়।

অস্থায়ী ভোট কেন্দ্র বানিয়ে স্বতস্ফুর্তভাবে সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ চলে। সরকারি নির্বাচনের আদলে ভোটকেন্দ্রে রিটার্নিং অফিসার, প্রিসাইডিং অফিসার, পোলিং অফিসার, পোলিং এজেন্ট, নিরাপত্তা কর্মী, ব্যালট বাক্স, ব্যালট পেপার, গোপন বুথ, ভোটের জন্য সীল সবই ছিল। ভোট কেন্দ্রের বাইরে ছিল ৪ প্রার্থী ও তাদের কর্মী সমর্থক এবং ভোটাররা। জাঁকজমকপূর্ন ভোটগ্রহন দেখতে অন্য এলাকার উৎসুক মানুষেরও কমতি ছিল না। গ্রামের শিক্ষিত যুবকদের দিয়ে রিটার্নিং অফিসার, প্রিজাইডিং অফিসার, ভোট গ্রহনকারী কর্মকর্তা বানানো হয়। ভোটের নিরপত্তায় আনসারও নিয়োগ করা হয়। ওই গ্রামের চারজন প্রার্থী যথাক্রমে মো. আব্দুল মোতালেব, মো. তোয়াবুর রহমান, মো. আব্দুর রহমান ও মো. শাহীনুর রহমান নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করেন। চারজন প্রার্থীর নাম ও ছবি সম্বলিত ব্যালট পেপার ছাপানো হয় ভোটের আগের দিন। ব্যালট পেপারের মাধ্যমে গোপন বুথে সিল মেরে ভোট প্রদান করেন ভোটাররা। লাইনে দাঁড়িয়ে উৎসবমূখর পরিবেশে ভোটগ্রহন অনুষ্ঠিত হয়। শান্তিপূর্ন ভোট গ্রহনের পর শুরু হয় ভোট গণনা। গণনা শেষে ফলাফল ঘোষনা করেন রিটার্নিং অফিসার রবিউল ইসলাম। এসময় প্রিসাইডিং অফিসার কাজিমুল ইসলাম, পোলিং অফিসার মো. সেলিম, পোলিং এজেন্ট আবু বক্কর সিদ্দিক বাবু ও নিরাপত্তা রক্ষি আনসার মো. হাসানুর ইসলামসহ শত শত গ্রামবাসী উপস্থিত ছিলেন।

নির্বাচন কর্মকর্তা, প্রার্থী ও ভোটাররা জানায়, একই গ্রামের চারজন ব্যাক্তি আসন্ন ইউপি নির্বাচনে ইউপি সদস্য পদে নির্বাচন করতে চায়। এ নিয়ে দ্বন্দ শুরু হয়। সেইসাথে ওই চার পরিবারের মধ্যে দেখা দেয় মনমালিন্য। গ্রামের ভোটাররা বিভাজন হয়ে যায়। দ্বন্দ সংঘাতে পরিনত হতে পারে, এমন আশংকা থেকেই ওই গ্রামের শিক্ষিত যুবকরা উদ্যোগ নেয় অস্থায়ী ভোট কেন্দ্র বানিয়ে গ্রামের ভোটারদের মাধ্যমে প্রার্থী বাছাইয়ের জন্য ভোটগ্রহণ। যে প্রার্থী নির্বাচনে জয়ী হবে আগামি ইউপি নির্বাচনে ইউপি স;স্য পদে তার পক্ষে গোটা গ্রামবাসী সমর্থন দিয়ে কাজ করবে। এই সিদ্ধান্তের কথা সমস্ত গ্রামবাসী একমত হয়ে অস্থায়ী ভোট কেন্দ্র বানিয়ে শনিবার কেরানিপাড়া গ্রামে ভোটগ্রহনের আয়োজন করা হয়।

ওই গ্রামের বাসিন্দা কাজিমুল ইসলাম জানান, নির্বাচনে প্রার্থী হতে কেউ কাউকে ছাড় দিচ্ছেন না। তাই আমরা কয়েকজন মিলে শহীদুলের চায়ের দোকানে বসে সিদ্ধান্ত নেই প্রার্থী বাছাইয়ে গ্রামবাসীদের ভোট গ্রহণের। প্রার্থী ও ভোটাররা এ সিদ্ধান্তকে সর্বসম্মতিক্রমে সম্মতি দেন।
পঞ্চগড় এম আর সরকারি কলেজের অনার্স ১ম বর্ষের শিক্ষার্থী মুন্নি আক্তার, বোদা পাথরাজ সরকারি কলেজের এইচএসসি ১ম বর্ষের শিক্ষার্থী আবু বক্কর সিদ্দিক বাবু প্রথম ভোটার হিসেবে ভোটের আগেই ভোট দিয়েছেন। তারা জানান, ভোট গ্রহণ ও ভোট প্রদান পদ্ধতি আমাদের জানা ছিল না। এখানে ভোট দিয়ে তা জানলাম। প্রথম ভোট দিয়ে ভালোই লেগেছে।
ওই গ্রামের বৃদ্ধ সফিকুল ইসলাম (৫৬) ও বৃদ্ধা মোছা. রাহেলা বেগম (৭৫) জানান, ইউপি নির্বাচনে প্রার্থী বাছাই করতেই আমরা ভোটের আগে ভোট দিয়েছি। আমরা আমাদের গ্রাম থেকে একজন প্রার্থীকে মনোনয়ন দিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচনে জিতিয়ে আনবো।
নির্বাচনে রিটার্নিং অফিসার রবিউল ইসলাম জানান, প্রার্থীরা সকলেই আমাদের চাচা, ভাই। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তাদের মধ্যে দ্বন্দ লাগুক এটা আমরা চাই না। তাই এমন একটি নির্বাচনের সিদ্ধান্ত আমাদের নিতে হয়েছে। আগামী নির্বাচনে আমাদের প্রত্যাশা পুরণ হবে এবং আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচনে আমাদের বিজয়ী প্রার্থীকে জিতিয়ে আনতে পারবো ইনশাআল্লাহ।
ঘোষিত ফলাফলে আব্দুল মোতালেব পান ৪৯ ভোট, মো. তোয়াবুর রহমান পান ৪৬ ভোট, মো. আব্দুর রহমান পান ৩০ ভোট এবং মো. শাহীনুর রহমান পান ১৭ ভোট। ১২টি ভোট নষ্ট হয়। বিজয়ী প্রার্থী আব্দুল মোতালেবকে ফুলের মালা দিয়ে বরন করেন গ্রামবাসী। এসময় তাকে নিয়ে আনন্দ মিছিলও করেন এলাকবাসী। পরাজিত প্রার্থীরাও বিজয়ী প্রার্থীর পক্ষে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবেন বলে অঙ্গীকার করেন।
নির্বাচনে বিজয়ী প্রার্থী মো. আব্দুল মোতালেব জানান, গ্রামবাসী আমাকে নির্বাচিত করেছে। ইনশ্আাল্লাহ আসন্ন নির্বাচনেও যদি আমি বিজয়ী হই তবে আমার এলাকায় ঘুষ-দূর্নীতি থাকবে না আপাতত এই প্রতিশ্রুতি দিলাম। আমার এলাকার প্রতিটি বিচার শালিস ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে সুষ্ঠুভাবে ঘুষ, অনিয়ম ছাড়াই সম্পন্ন করবো। আমি নির্বাচিত হলে এলাকার মা বোনরা যদি আমাকে নির্বাচিত করে এলাকার যে ছোটখাট সমস্যা রাস্তাঘাট, ব্রীজ কালভার্ট সরকারি অনুদান না পেলেও নিজের সামথ্যের মধ্যে আমি যেন করতে পারি আল্লাহ যেন আমাকে তৌফিক দেন। আর প্রতিদ্বন্দি প্রার্থী ভাইরা যেন রাগ গোসা না করেন আমি আপনাদের সাথে নিয়েই এলাকার কাজ করে যাবো এই প্রতিশ্রুতি আমি দিলাম।
ময়দানদিঘী ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১৭৭৬ জন। আর কেরানীপাড়া গ্রামের মোট ভোটার প্রায় ২২৫ জন। এরমধ্যে ১৫৪ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।

You must be Logged in to post comment.

পঞ্চগড়ে আ.লীগের দলীয় মনোনয়ন পেতে সাবেক চেয়ারম্যান ও যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার সংবাদ সম্মেলন     |     পঞ্চগড়ে তৃতীয় নিলাম মার্কেট স্থাপনের পরিকল্পনা     |     ইউপি নির্বাচনের দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান     |     রূপসায় ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা প্রার্থীদের মনোনয়ন পত্র জমা     |     কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার প্রতিবাদে সাতক্ষীরায় মানববন্ধন     |     ঠাকুরগাঁওয়ে রুহিয়া থানা পুলিশের গাড়ীর ধাক্কায় – ১ জন গুরুতর আহত ।     |     বীরগঞ্জে আদিবাসী মিলন মেলা অনুষ্ঠিত      |     ঠাকুরগাঁও হরিপুরে উৎসবমুখর পরিবেশে মনোনয়নপত্র জমা     |     ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে আওয়ামীলীগের ৪৬ জন প্রার্থীর মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন ।     |     ” হত্যা না আত্মহত্যা” ঠাকুরগাঁওয়ে গৃহবধুর রহস্যজনক  মৃত্যু !      |