ঢাকা, শুক্রবার, ৮ই ডিসেম্বর ২০২৩ ইং | ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সাতক্ষীরায় গুড় পুকুর মেলায় স্টল মালিকদের নিকট থেকে হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা : বিপাকে ব্যবসায়ীরা

আব্দুল আলিম, সাতক্ষীরা: হিন্দু ধর্মের স্বর্পদেবী মা মনসা পূজার মধ্যদিয়ে প্রতিবছর বাংলা সনের ভাদ্র মাসের শেষ দিনে অনুষ্ঠিত হয় সাতক্ষীরার ২০০ বছরের পুরোনো ঐতিহ্যবাহি গুড় পুকুরের মেলা। এবছরও সব ধর্মের শ্রেণী পেষার মানুষের পদচারনায় মূখরিত হয়ে উঠেছে শহীদ আব্দুর রাজ্জাক পার্কের মেলা প্রাঙ্গন। সকাল ৮ থেকে রাত ১২ টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের ভীড় লেগেই থাকে। ২০০২ সালে মেলার সার্কাস প্যান্ডেল ও রক্সি সিনেমা হলে বোমা হামলার পর মেলাটি এক প্রকার বন্ধ হয়ে যায়। ২০১১ সাল থেকে সাতক্ষীরা পৌরসভা ও জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শহীদ আব্দুর রাজ্জাক পার্কে ফের চালু হয় মেলাটি। এবছরও যথা সময়ে মেলা শুরু হলেও মেলা কেন্দ্রিক শুরু হয়েছে মোটা অংকের বানিজ্য। প্রতিদিন দোকানিদের নিকট থেকে মেলার চেয়ারম্যান হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা। দোকান ভাড়ার নামে দূর দূরান্ত থেকে আসা পরসা সাজিয়ে বসা দোকানদারদের নিকট থেকে দৈনিক ভিত্তিতে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে বলে অভিযোগ ব্যবসায়ীদের। ইতিমধ্যে মেলাটি জমে উঠলেও লোকসান ঠেকাতে বাদ্য হয়ে মার্কেট ছাড়া বাড়তি দামে পন্য বিক্রি করতে হচ্ছে ব্যবসায়ীদের। এতে করে বিপাকে পড়েছে মেলায় ঘুরতে আসা দর্শনার্থীরা। মেলায় মাইকে গান বাজনার কারনে পার্ক মসজিদসহ পাশবর্তী দু’টি মসজিদে নামাজ আদায় করতে বিঘিœত হচ্ছে মুসুল্লিদের। পাশ্ববর্তী মহিলা কলেজ,নবারুণ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, মহিলা কলেজের হোস্টেলসহ পিএন স্কুলে শ্রেণিকক্ষে পাঠ দান ব্যাহত হচ্ছে অভিযোগ শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের।
দুইশ বছরের বেশি সময় ধরে চলে আসছে ঐতিহ্যবাহি সাতক্ষীরার গুড় পুকুরের মেলা। এবছরও মেলা প্রাঙ্গন রাজ্জাক পার্কে পরসা সাজিয়ে বসেছে তিন শতাধিক স্টল। সকাল ৮টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত চলে বেচাকেনা। প্রতিদিন দূর দুরান্ত থেকে ভীড় জমাচ্ছে শিশু-কিশোর থেকে শুরু করে বয়োবৃদ্ধরা। তবে ঐতিহ্যের এ মেলায় দেখা যেতো গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য বাঁশ, বেত দিয়ে তৈরী আসবাবপত্র, কাঠের ফার্নিচার ও কুটির শিল্পের বিভিন্ন পন্য। কিন্তু এগুলো এবারের মেলায় না থাকায় অনেকে হতাশ হয়ে ফিরে যাচ্ছে। ক্রেতা সাধারণের অভিযোগ মেলায় নিন্ম মানের থ্রি-পিচ, বাচ্চাদের খেলনা এবং গহনার ইমেটেশন ও প্লাস্টি সামগ্রীতে ছয়লাফ। মানহীন পণ্য আর চড়া দামের কারনে ক্রেতা সাধারণ ফিরে যাচ্ছে। ত্রেতাদের অভিযোগ মার্কেট ছাড়া মেলায় অতিরিক্ত দামে বিক্রি হচ্ছে নিম্নমানের জিনিসপত্র।
মেলায় ঘুরতে ও কেনাকাটা করতে আসা ত্রিশমাইলের জাকির হোসেন, লাবসার সাগর হোসেন ও পাটকেলঘাটার লিটন ও সাতক্ষীরার হাফিজ ও কাটিয়া এলাকার শিউলি আক্তার জানান, বাইরের মার্কেটে যে সকল পণ্যের দাম ৭০ থেকে ১০০ টাকা। সেই একই পন্য মেলায় দাম হাকানো হচ্ছে তিন থেকে চারগুন চড়া মূল্যে। এছাড়া মেলায় এবার মানহীন পন্যে ছয়লাভ। যে কারনে বাধ্য হয়ে ফিরে যেতে হচ্ছে তাদের। তবে ঢাকা-খুলনা, যশোর নড়াইলসহ বিভিন্ন জেলা থেকে আসা স্টল মালিকরা বলছে ৮ থেকে ১০ ফুট আয়োতনের এক একটি দোকানের ফ্লোরে বিছানো ইট ভাড়া,দোকান ভাড়া,কারেন্ট বিল তার পরে আবার দোকানের উপরের ছাউনি ভাড়া সব মিলিয়ে প্রতিটি দোকানভেদে ৭ থেকে ১০ হাজার টাকা করে প্রতিদিন গুনতে হচ্ছে মেলার চেয়ারম্যান মানিক শিকদার ও তার ছেলেকে। বেচা বিক্রি হোক আর না হোক মেলার আয়োজক কমিটিকে টাকা গুনতে হিমশিম খেতে হচ্ছে তাদের। লোকসান ঠেকাতে যে কারনে একটু চড়াদামে পন্য বিক্রি করতে হচ্ছে। আর এই বাড়তি দামের কারণে ক্রেতা-সাধারণের ভীড় হলেও অধিকাংশরা পন্য না কিনে শুধু দাম শুনেই ফিরে যাচ্ছে।
এদিকে শিশুদের বিনোদনের জন্য মেলায় রয়েছে, ট্রেন, নাগরদোলা-হানি সুইং, ইলেকট্রনিক ভাসমান নৌকাসহ বিভিন্ন ধরনের রাইড। শিশুদের সখ ও বিনোদন মিটাতে বিভিন্ন রাইডে চড়তে গেলে মাথা প্রতি ৫০ থেকে ১০০ টাকা হারে টিকিট ক্রয় করতে হিমশিম খেতে হচ্ছে অভিভাবকদের। টিকিটের মূল্য অতিরিক্ত ধরা হয়েছে যা অযৌক্তিক বলে মনে করছেন অভিভাবকরা।
এদিকে মেলায় অবস্থিত তিন শতাধিক স্টল মালিকদের নিকট থেকে মেলার আয়োজক কমিটি’র চেয়ারম্যান মানিক শিকদারসহ তার নিয়ন্ত্রিত একটি প্রভাবশালী মহল হাতিয়ে নিচ্ছে দৈনিক ২০ থেকে ২৫ লক্ষ টাকা। এতে করে ক্ষুব্দ এলাকাবাসী ও ব্যবসায়ীরা। তবে মেলা আয়োজক কমিটির চেয়ারম্যান মানিক শিকদারের দাবি দোকানের নীচে বিছানো ইট, ঘরের ছাউনি ও বিদ্যুৎ বিল এবং জেনারেটর ভাড়া বাদে শুধুমাত্র তিনি প্রতিদিন দোকান প্রতি চার শত টাকা থেকে ৫০০ টাকা হারে আদায় করা হচ্ছে।
এক সময় পলাশাপোল এলাকার বট তলা থেকে শহরব্যাপী বিস্তিৃতি ছিল গুড় পুকুরের মেলা। কিন্তু এখন রাজ্জাক পার্কে মেলাটি সীমাবদ্ব থাকায় বিপাকে পড়েছে মেলা প্রাঙ্গনে অবস্থিত পার্ক মসজিদসহ মেলা সংলগ্ন কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মসজিদে নামাজ আদায় করতে আসা মুসুল্লিসহ মেলার মধ্যেই অবস্থিত কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরি, গনগ্রন্থ্যগার এছাড়া পাশেই অবস্থিত নবারুন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি মহিলা কলেজ, মহিলা কলেজের হোস্টেল ও পিএন স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থী ও শিক্ষরা। মেলায় সর্বক্ষ হৈ-হুল্লর আর মাইকে গান-বাজনার কারনে শ্রেণি কক্ষে পাঠ বাধাগ্রস্থ্য হচ্ছে। রাতে মহিলা কলেজের হোস্টেলের মেয়েরা লিখা-পড়ায় মনোনিবেষ করতে পারছেনা। এজন্য মেলাটির মেয়াদ না বাড়িয়ে যথা সময়ে মেলাটি সমাপ্ত করার দাবি জানিয়েছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।
এ বছর ২২ সেপ্টেম্বর উদ্বোধন হওয়া মেলা চলবে ১২ অক্টোবর পর্যন্ত। মেলার মেয়াদ আরও যেন বৃদ্বি না করা হয় সে জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী।
এদিকে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির সাংবাদিকদের জানান, নামাজের সময় এবং মেলায় রাত ১০টার পরে কোন প্রকার বাদ্য-বাজনা ও মাইকে গান বাজনা না বাজে সে জন্য মেলার চেয়ারম্যানকে নিষেধ করা হবে। এছাড়া মেলার সময় সীমা বৃদ্বির ব্যাপারে তিনি জানান এখনো কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে সামনে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বড় উৎসব দুর্গা পূজা। পূজা কেন্দ্রিক মেলার সময় সীমা বৃদ্বি করা যাবে কিনা আলোচনার পর সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হবে।

You must be Logged in to post comment.

রুহিয়ায়  ইয়াবা সহ গ্ৰেফতার ১     |     মেহেরপুর-২ গাংনী আসনের এমপি সাহিদুজ্জামান খোকনের সম্পদ বেড়েছে কয়েক গুন     |     মেহেরপুরে সরকারীভাবে ধান চাল সংগ্রহ অভিযানের শুভ উদ্বোধন     |     ফুলবাড়ীতে লটারির মাধ্যমে কৃষক নির্বাচন     |     গাংনীতে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন উপলক্ষে উপজেলা অবহিতকরণ ও পরিকল্পনা সভা অনুষ্ঠিত     |     আটোয়ারীতে পরিবার কল্যাণ সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে এ্যাডভোকেসি সভা     |     দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয় আমাদের একমাত্র লক্ষ্য নয়। আমাদের রাজনৈতিক যুদ্ধেও বিজয় অর্জন করতে হবে। –নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি।     |     ফুলবাড়ীতে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের দায়ে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা।     |     পাঁচ বছরে রাঙ্গার নগদ অর্থ বেড়েছে ১৪ গুন     |     মেহেরপুরের রাজনগরে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে বৈদ্যুতিক মিস্ত্রী নিহত     |