ঢাকা, শুক্রবার, ৯ই ডিসেম্বর ২০২২ ইং | ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সাতক্ষীরায় জি-৩ জাতের রুই মাছে আশার আলো দেখছেন চাষীরা

আব্দুল আলিম, সাতক্ষীরা : ওয়ার্ল্ড ফিস উদ্ভাবিত দ্রুত বর্ধনশীল জি-৩ জাতের রুই মাছ চাষে আশার আলো দেখছেন সাতক্ষীরার মৎস্য চাষিরা। অন্যান্য প্রজাতির রুই মাছের তুলনায় এটি যেমন দ্রুত বর্ধশীল তেমনি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বেশি। ফলে এ প্রজাতি রুই মাছ চাষে ব্যাপক আগ্রহ বাড়ছে মৎস্য চাষিদের মাঝে।
সাতক্ষীরা সদর উপজেলা জেয়ালা এলাকার মৎস্য চাষি আব্দুল গফুর জানান, গত মৌসুমে যশোর থেকে ৩ হাজার পিচ জি-৩ রুই মাছের পোনা সংগ্রহ করে ঘেরে অবমুক্ত করেন। ১৫০ গ্রাম ওজনের প্রতিটি ৭ থেকে ৮ মাস পর একেকটি ২ কেজি ৪০০ থেকে ২ কেজি ৫০০ পর্যন্ত ওজন হয়েছে। আগামী তিন মাস পর ওই মাছ বিক্রি করবেন বলে জানান তিনি। তখন একেকটি রুই মাছ ৪ কেজির মত ওজন হতে পারে বলে আশা করছেন। তার হিসাব অনুযায়ী পুরো এক বছরে ৩ হাজার রুই মাছের উৎপাদন খরচ হবে সাড়ে ৬ থেকে ৭ লাখ টাকা। আর বাজারে ১৫ থেকে ১৬ লাখ বিক্রি হবে বলে ধারনা করছেন তিনি।
সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার কুলিয়া ইউনিয়নের হিরারচক গ্রামের খুকু ফিস এন্ড এগ্রো ফার্মের স্বত্তাধিকারী মৎস্য চাষী হাফিজুর রহমান মাসুম জানান, চলতি মৌসুমে যশোর হতে জি-৩ জাতের রুই মাছের রেনু পোনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা মূলকভাবে ঘেরে নাসিং করেন। তিনি বলেন, দুই মাসের মধ্যে অবিশ^াস্য গ্রোথ এসেছে ওই পোনা। মাত্র দুই কেজি রেনু পোনা নার্সিং করে ইতি মধ্যেই প্রায় ৩০ মন বিক্রি করেছেন। এখনো তার ঘেরে যে পরিমান পোনা মজুত রয়েছে তা হয়তো আরো ২০ থেকে ২৫ মন পোনা হতে পারে বলে জানান।
ওয়ার্ল্ড ফিস্রে দায়িত্বরত যশোর অঞ্চলের মার্কেটিং স্পেশালিষ্ট মো. হাসনাল আলম জানান, রুই মাছের প্রাকৃতিক প্রজননের জন্য বিখ্যাত বাংলাদেশের তিনটি প্রধান নদী হালদা, পদ্মা ও যমুনা নদীর রুই থেকে ওয়ার্ল্ড ফিসের বিজ্ঞানীদের ১০ বছরের গবেষণার ফলে উদ্ভাবিত জেনেটিক্যালি ইমপ্রুভড জি-৩ রুই। গবেষণার প্রতিটি স্তরে ওয়ার্ল্ড ফিসের বিজ্ঞানীরা এই রুইয়ের জিনগত বৈশিস্টসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা ও পর্যবেক্ষণগুলো সম্পন্ন করেছেন আমেরিকায় অবস্থিত তাদের সেরা ল্যাবরেটরিতে। গবেষণাকালীন রাজশাহী ও খুলনা বিভাগের ১৯টি খামারের বিভিন্ন পুকুরে এই রুই নদীর রুইয়ের চেয়ে ৩৭ শতাংশ এবং হ্যাচারির সবচেয়ে ভালোমানের রুইয়ের চেয়েও ৫০- ৫৫ শতাংশ বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে বলে দেখা গেছে।
তিনি আরো জানান, জি-৩ রুই কোন হাইব্রিড রুই নয়। এটি সম্পূর্ণভাবে আমাদের দেশীয় রুই। হালদা-পদ্মা ও যমুনা নদীর রুইয়ের মধ্য থেকে জিনগতভাবে সর্বোৎকৃষ্ট মাছের প্রজননের মাধ্যমে এই রুই উদ্ভাবন করা হয়েছে। আর একারণেই জি-৩ রুইয়ের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সাধারণ রুইয়ের চেয়ে বেশি। এটি প্রতিকুল পরিবেশেও ভালো বৃদ্ধি পায়। সাধারণ রুই যেখানে একবছরে ১ থেকে দেড় কেজির বেশি বড় হয় না, সেখানে ভালোভাবে যত্ন নিলে এক একটি জি-৩ রুই এক বছরেই প্রায় ৩ কেজি ওজন হয়। এই রুই দেখতে অত্যন্ত সুন্দর এবং খেতেও খুবই সুস্বাদু।
সাতক্ষীরা জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ আনিছুর রহমান জানান, ওয়ার্ল্ড ফিস উদ্ভাবিত জি-৩ জাতের রুই এ জেলার মৎস্য চাষিদের জন্য আশার আলো জাগাচ্ছে। তিনি বলেন, গত বছর থেকে সাতক্ষীরার কিছু কিছু এলাকাতে জি-৩ জাতের রুই মাছ বানিজ্যিকভাবে চাষ শুরু হয়েছে। ইতি মধ্যে এ প্রজাতি রুই মাছ চাষে ব্যাপক আগ্রহ লক্ষ করা যাচ্ছে মৎস্য চাষিদের মাঝে। আরো বেশি পরিসরে এটি চাষ করতে হলে পোনা সরবরাহ বাড়াতে হবে বলে জানান তিনি।

You must be Logged in to post comment.

মির্জা ফখরুলকে আটকের প্রতিবাদে ঠাকুরগাঁওয়ে বিক্ষোভ      |     বোদায় শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ     |     লালমনিরহাটে বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল     |     চিলাহাটিতে আওয়ামী লীগের জন্য  পুনরায় ফিরে পেলো টিসিবির পণ্য সুবিধাভোগীরা।      |     লালমনিরহাটে নবাগত জেলা প্রশাসকের মতবিনিময় সভা     |     ফিজু স্মৃতি গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন     |     ফুলবাড়ীতে দুই দলের সমর্থকদের প্রীতি ফুটবল ম্যাচ,বিজয়ী আর্জেন্টিনা।     |     গাংনীতে নাশকতা মামলার সন্দেহভাজন আসামী যুবদল নেতা জাহিদ আটক     |     বীরগঞ্জে প্রতিবন্ধীদের মাঝে হুইলচেয়ার বিতরণ     |     টাঙ্গাইলের এলেঙ্গায় জিমে’র আড়ালে মাদক ব্যবসা ; ৩০ লাখ টাকার হিরোইনসহ নারী আটক     |